ইভিএম প্রযুক্তিতেই নির্বাচন নিরপেক্ষভাবে করা সম্ভব : নির্বাচন কমিশনার

নজরুল ইসলাম বাবুল, নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

0 40

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে,এম নূরুল হুদা বলেছেন, ইভিএমের জন্য নির্বাচন কমিশনকে অনেক তিরস্কার সহ্য করতে হয়েছে। কিন্তু আমরা তখন বিশ্বাস করেছি এটাই একমাত্র নির্ভরযোগ্য প্রযুক্তি যার মাধ্যমে নির্বাচন নিরপেক্ষভাবে করা সম্ভব। তাই আমরা কারও তিরস্কারে কর্ণপাত করিনি। ইভিএম নিয়ে আমাদের যাত্রা অব্যাহত রেখেছি। এটা ব্যবহারে ভুল হতেই পারে। সে ভুল থেকে আমরা শিক্ষা গ্রহণ করবো। প্রথমে ইভিএম আরও জটিল ছিল, এখন এটা সহজ হয়েছে। আমরা ইভিএম এক্সপার্ট তৈরি করে ফেলেছি, আরও তৈরি করবো।

advertisement

advertisement

তিনি আরও বলেন, ইভিএম এমন একটা প্রযুক্তি যা পৃথিবীর অনেক দেশের চেয়ে উন্নত মানের। আপনারা জানেন পৃথিবীর কোনো দেশে আধা ঘণ্টার মধ্যে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা সম্ভব হয় না। আমেরিকায় দুই সপ্তাহ পরে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়। আর ইভিএমে আধা ঘণ্টা লাগে। আগে রাত কাভার হয়ে যেত ভোট গণনা করতে গিয়ে।

আজ বুধবার (১২ জানুয়ারি) নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রিজাইডিং অফিসারদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার নূরুল হুদা এ কথা বলেন।

advertisement

নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের সংবাদ সম্মেলন আচরণবিধির লঙ্ঘণ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা।

সিইসি নূরুল হুদা বলেন, প্রিজাইডিং অফিসারের কী দায়িত্ব সেটা নতুন করে বলার নেই। আমি বলবো নির্বাচন পরিচালনার ব্যাপারে আপনাদের নিরপেক্ষতাই সবচেয়ে বড় অস্ত্র। এটাই প্রথম কথা। একজন সচেতন শিক্ষিত নাগরিক হিসেবে একেকটা মত থাকতে পারে, কোনো ব্যক্তি বা দলের প্রতি দুর্বলতা থাকতে পারে। কিন্তু যখন আপনি নির্বাচন পরিচালনা করবেন তখন কে কোন মতের এটা আপনার মাথায় থাকে না নিশ্চয়ই। আমরা সবাই সেভাবে দায়িত্ব পালন করি। এটা একটা নির্বাচনকালীন প্রতিজ্ঞা।

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনের প্রায় ৯৫ ভাগ দায়িত্ব আপনাদের ওপর অর্পিত। এটাকে বলা হয় ডেলিগেশন অব পাওয়ার। একটা কেন্দ্রে কীভাবে নির্বাচন পরিচালনা করবেন। কখন নির্বাচন পরিচালনা করতে হবে, কখন তা বন্ধ রাখতে হবে, এটার সব দায়িত্ব আপনাদের। আপনি নির্বাচনের আইন জানেন। সে আইন অনুযায়ী কাজ করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, আমি যদি কোনো প্রিজাইডিং অফিসারকে বলি আমি খবর পেয়েছি আপনি নির্বাচন বন্ধ করে দেন। আপনি কী বন্ধ করে দেবেন ? না। কারণ আমি ব্যক্তি। আপনার হাতে আছে আইন। আপনার প্রতিটা পদক্ষেপ আইনের পক্ষে হতে হবে। এখানে আইন ব্যক্তির ওপরে। ব্যক্তি যতই প্রভাবশালী হোক না কেন এখানে কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়। তাহলে নির্বাচন অতি সহজভাবে পরিচালনা করা সম্ভব।

এ সময় রিটার্নিং কর্মকর্তা মাহফুজা আক্তার, জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ, জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম, জেলা নির্বাচন অফিসার মতিয়ুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এই বিভাগের আরো খবর

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.