রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের চুলকাটার ঘটনায় ইউজিসির তদন্ত অনুষ্ঠিত

মির্জা হুমায়ুন, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি

0 13

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে প্রতিষ্ঠিত রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের চুলকাটার ঘটনায় ফের বিশ্ববিদ্যালয়ের মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসির) তদন্ত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

advertisement

advertisement

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের শিক্ষিকা ফারহানা ইয়াসমিন গত ২৬ সেপ্টেম্বর পরীক্ষার হলে প্রবেশের সময় ওই বিভাগের প্রথম বর্ষের ১৪ ছাত্রের মাথার চুল কাচি দিয়ে কেটে দেন বলে অভিযোগ ওঠে। চুলকেটে দেওয়ার এ অপমান সইতে না পেরে এক ছাত্র ঘুমের ওষুধ সেবন করে আত্নহত্যার চেষ্টা করে।

এ ঘটনার প্রতিবাদে ও শিক্ষিকা ফারহানার স্থায়ি অপসারণ দাবীতে পুরো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা লাগাতার আন্দোলন কর্মসূচি শুরু করে।

advertisement

শিক্ষার্থীদের এ আন্দোলনের মুখে শিক্ষিকা ফারহানা ইয়াসমিনকে সাময়ীক বরখাস্ত করে ঘটনার তদন্তে ৫ সদস্যের বদন্ত কমিটি গঠন করে। এরপর তদন্ত কমিটির কাছে নির্যাতিত ছাত্র, প্রত্যক্ষদর্শী,শিক্ষক,কর্মকর্তা, কর্মচারিরা স্বাক্ষ দিলেও শিক্ষিকা ফারহানা স্বাক্ষ না দিয়ে ২ সপ্তাহের সময় প্রার্থনা করেন। তদন্ত কমিটি প্রথমে ৩দিন, পরে আরও ৬ দিন ও সব শেষে ১৪দিন সময় দেন।

এ সময়ের শেষ দিন বৃহস্পতিবারও তিনি স্বাক্ষ দিতে আসেননি। ফলে তাকে আর সময় না দিয়ে তদন্ত কমিটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন।

গত২২ অক্টবর বিকেল ৪ টার সময় সিন্ডিকেট সভা শুরু হলে শিক্ষক ফারহানার বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত ছাড়াই সিন্ডিকেট সভা মূলতবী হলে শিক্ষার্থীরা বিক্ষুদ্ধ হয়ে এ দিন রাত থেকেই আবারও লাগাতার আন্দোলন ও অনশন শুরু করে। অনশন চলাকালিন গত রবিবার দুপুরে সবার সম্মুখে শিক্ষার্থী শামীম বিষপান করে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করলে তাকে হাসপাতালে ভর্তী করা হয়।

এ ঘটনায় শিক্ষার্থীরা আরো ক্ষিপ্ত হয়ে মহাসড়ক অবরোধ করে। এ দিন সন্ধায় রবির রেজিষ্টারসহ শিক্ষক/শিক্ষিকা ও কর্মচারীদের ক্যাম্পাসে গভীর রাত পর্যন্ত অবরুদ্ধ করে রাখে এবং রাত ২ টার দিকে শিক্ষক কর্মচারিরা মুক্ত হয়।

আন্দোলন চলাকালীন গত মঙ্গলবার বিকেলে ভিসি ও ট্রেজার আব্দুল লতিফ, রেজিষ্টার সোহরাব আলী ও অন্যান্য কর্মকর্তা এবং শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মর্কর্তা শিক্ষার্থী নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠক করে শিক্ষার্থীদের কাছে থেকে ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত সময় চেয়ে নেন।

এদিকে বুধবার এই ঘটনার ফের তদন্তে বিশ্ববিদ্যালয়ের মঞ্জুরি কমিশনের ৩ সদস্য বিশিষ্ট্য কমিটির মধ্যে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালের পরিচালক প্রফেসর জামিনুর রহমান ও সহকারি পরিচালক ইউসুফ আলী খান রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন এবং কমিটির আহবায়ক প্রফেসর দিল আফরোজ বেগম তিনি ভার্চুয়াল তদন্ত করেন।

এ দিন সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত চুল কাটা ১৪ জন শিক্ষার্থী, অভিযুক্ত শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিন বাতেন, প্রত্যাক্ষদর্শী শিক্ষার্থী, শিক্ষক,ও কর্মচারীদের নিয়ে এ তদন্ত করা হয়।

এ ব্যাপারে তদন্ত কমিটিকে সাংবাদিকরা জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা বলেন, তদন্ত চলছে, এখনই কোন কিছু বলা যাবেনা।

এই বিভাগের আরো খবর

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.