“উল্টায় গেছে ভাগ্যের চাকা”

নিজস্ব প্রতিবেদক

0 48

দেখে বোঝার উপায় নেই যে লকডাউন চলছে, তবুও থেমে থেমে পুলিশের হুইসেলে চমকে উঠছে রাজপথের রিক্সা চালকেরা। লকডাউনের আগে প্রধান সড়কে আসতে তাদের অনেক ঝক্কি ঝামেলায় পড়থে হতো, কিন্তু এই লকডাউন তাদেরকে রাজধানীর রাজপথ আসতে একরকমের অনুমতিই দিয়েছে।

করোনাভাইরাসের হাত থেকে দেশবাসিকে মুক্ত রাখতে ২০২১ সালের প্রথম লকডাউন শুরু হয় ৫ এপ্রিল থেকে যা পরবর্তিতে দু দফায় বাড়িয়ে ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়। প্রায় মাসজুড়ে চলা এই লকডাউনের কবলে পড়ে কে কেমন আছে তা জানার নেই কোন অবকাশ। তবে কঠোর লকডাউনে আবার মুভমেন্ট পাসের ব্যবস্থা থাকায় অনেকেই এই সুযোগকে কাজে লাগিয়েছেন।

রমজান মাসের রহমতের ১০ দিন শেষ হতে চল্লো, বাকি মাগফেরাতটা পেড়োলেই নাযাতের ১০ দিনে শেষে ঈদ। মুসিলমদের জীবনে দুটি বড় উৎসবের একটি। কিন্তু কি আর করা। বসই তো করোনার কবলে শেষ হয়ে গেছে। পুড়িয়ে ছাড়খার করেছে গরীবের স্বাধ ও স্বপ্নকে। তেমনই এক হতভাগ্য রিক্সাচালকের সাথে দুদন্ড কথা বলে এই প্রতিবেদনটি তৈরী করেছেন মিজান মাহমুদ।

আপনার নাম ও কোথায় থাকেন এমন প্রশ্নের জবাবে বললেন, থাকি এই আপনাগো শহরের মিরপুরত এক বস্তিতে। পোলা মাইয়া লইয়া কোন মতে একডা ভাঙা ডেরায় বাস করি। রিক্সা চালায় যা পাই তা দিয়া রিক্সার গ্যারেজ ভাড়া ও মহাজন, বাজার আর ঘর ভাড়া দিয়া কোন মতে চলি এই আর কি।

লকডাউনে কি কি সমস্যা হচ্ছে এমন প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, সখ করি কেউ রিক্সা চালায়? দেশে অভাব অনাটনে দিগবিদিক হয়ে আসলাম এই শহরে একটা ভাল রুজি করার আশায়।ঢাকায় আসার পরত থ্যাকি এহন পর্যন্ত ভাল করি দুই বেলা খাবার পারি নাই। গত বছরের লকডাউনের সময় আছিলাম দেশে(রুংপুর)।পরিবারের খাবার জোটাইতে না পেরে অন্যের বাসায় কাজ করেও সময় মতো মেলনি পারিশ্রমিকের টাকা। তাই এইবার গ্রাম না থেকে আসলাম শহরে।চলতি মাসের ১১ এপ্রিলের পরে ২ দিন ফাকা ছিল ঢাকার রাস্তাঘাট। ভালই কাজ করতে পেরেছি। কিন্তু ১৪ তারিখ থেকে আজ অবধি রিক্সার তেমন কোন খ্যাপ নাই। সামনে ঈদ কি করবো তাই ভাবছি। এদিকে আবার প্রতিদিনের মালিকের ভাড়ার টাকা, গ্যারেজ ভাড়া সব ঠিক মতো পরিশোধ করতে না পারলে তো পরের দিন রিক্সা নিযে বের হতে পারবো্ না্।

তিনি অভিযোগ করে আরো বলেন, রাজধানীতে যত দোষ রিক্সা চালকদের। প্রাইভেট কার ট্রাক ও অন্যান্য যানবাহনের কোন দোষ নাই। তাই প্রতিটা মোড়ে মোড়ে দেখা যায় “উল্টায় রাখা হইছে গরিবের ভাগ্যের চাকা”।

এই বিভাগের আরো খবর

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.