ভাল্লাগে না’এ কেমন রোগের দাওয়াই!

ডেস্ক রিপোর্ট

0 17

দুশ্চিন্তা, অনিশ্চয়তা আর দুঃসংবাদ হয়ে উঠেছে আমাদের নিত্যসঙ্গী। জেনে নিন কীভাবে এই দিনগুলোতেও ভাল রাখবেন মন ভাল্লাগে না কিছুই যেন আর আগের মতো ভাল লাগে না। যতই নিয়ম করে পুবদিকে সূর্য উঠুক আর পশ্চিমে অস্ত যাক না কেন, কিছুই যেন আর আগের মতো নেই। দুশ্চিন্তা, অনিশ্চয়তা আর দুঃসংবাদ হয়ে উঠেছে আমাদের নিত্যসঙ্গী। জেনে নিন কীভাবে এই দিনগুলোতেও ভাল রাখবেন মন।

১. পাঁচমাস আগেও আমাদের যার যাই রুটিন থেকে থাকুক না কেন, এতদিনে তার অনেকটাই এলোমেলো হয়ে গিয়েছে। নিউ নর্ম্যাল এই যাপনে তাই দূরে রাখার চেষ্টা করুন একঘেয়েমি। সকালে উঠে ছাদে হোক বা বারান্দায় বা নিদেনপক্ষে ঘরের মধ্যেই, খানিক হাঁটাহাঁটি করতে পারলে দিনভর শরীর-মন দুইই ঝরঝরে লাগবে।

২. বাগানে বা বারান্দায় বা ছাদে, কোথাও কি কিছু গাছ লাগিয়েছেন? সকাল-সকাল তাদের খানিক পরিচর্যা করতে পারেন। যাদের বাড়িতে এখনও গাছ নেই, জোগাড় করে ফেলতে পারেন কিন্তু।

৩. বাড়ির কাজ নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নেওয়ার চেষ্টা করুন। দিনভর বাড়ি থেকে অন্তত কিছু কাজে হাত লাগালে, বিশ্বাস করুন, দিনের শেষে খানিকটা হলেও ভালই লাগে!

৪. ঘরের কাজ হোক বা অফিসের, যে কাজই করুন না কেন, কাজের সময়টুকু তা ভালবেসে, মন দিয়ে করার চেষ্টা করুন। তা নাহলে না কাজটা ভাল হবে, না-ই মন ভাল থাকবে।

৫. ঘনিষ্ঠ প্রিয়জনদের সঙ্গেও অনেকেরই বেশ কিছুদিন হল দেখা হয় না। অনেকে বাবা-মার থেকেও দূরে আছেন। স্বাভাবিকভাবেই, তাঁদেরও মন ভাল নেই, আপনারও। সময় করে এবং নিয়ম করে ফোনে বা ভিডিয়ো কলে তাদের খোঁজ নিন।

৬. বন্ধু-বান্ধবদের সঙ্গেও অনেকদিন মুখোমুখি বসা হয় না, বাইরে বেরনো হয় না। সময় করে তাদের ফোন করুন, মেসেজ করুন, হোয়াটসঅ্যাপ বা মেসেঞ্জারে ভিডিয়ো কলে একসঙ্গে কয়েকজন মিলে আড্ডা বসিয়ে দিন। সময় কীভাবে হুহু করে কেটে যাবে, বুঝতেই পারবেন না, মনটাও ভালই থাকবে।

৭. বাড়িতে ছোটরা আছে? আপনার চেয়েও বেশি খারাপ অবস্থা বোধ হয় ওদের। সময় নিয়ে ওদের বোঝান, এই পরিস্থিতি সাময়িক। প্রয়োজনে ওদের সঙ্গে লুডো, ক্যারম বা দাবার মতো ইনডোর গেমস খেলুন। ওদের গল্প পড়ার অভ্যেস গড়ে তুলুন।

৮. নিজের অপূর্ণ শখ কিছু থেকে থাকলে এই মরশুমে তা মিটিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করতে পারেন। গান গাওয়া, ছবি আঁকা, গল্প-কবিতা লেখা, বই পড়া, সিনেমা/সিরিজ দেখা, রান্না করার মতো বহু শখ এই বেলা পূরণ করে নিতে পারেন। শেখানোর জন্য আর কেউ যদি নাও থাকে, হাতের স্মার্টফোনে ইউটিউব তো আছেই!

৯. টিভিতে সারাক্ষণ খবর দেখে মাথা খারাপ না করে দিনের নির্দিষ্ট সময়ে খবরের কাগজ পড়ুন, নিউজ দেখুন। বাদবাকি সময়টা বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান দেখতে পারেন। মোবাইলে গান, গেমস, এসবও তো রয়েছেই।

১০. সচেতন থাকব, সতর্ক থাকব কিন্তু অযথা দুশ্চিন্তা করব না। নিউ নর্ম্যালে এই কথাগুলো নিজেকে ভাল করে বোঝান। রোজ সারা পৃথিবীর কোথায় কতজন আক্রান্ত হলেন আর কতজন সেরে উঠলেন, সেই হিসেবে চোখ রাখা ভাল, কিন্তু ওটুকুই। চোখ বেয়ে সেই হিসেব আর তার পিছনেই ধাওয়া করে আসা একরাশ দুশ্চিন্তাকে মাথায় উঠে বসতে দিলেই চিত্তির!

সবাই মিলে একে অন্যকে ভাল রাখতে-রাখতে এভাবেই একদিন পেরিয়ে যাওয়া যাবে এই কঠিন সময়। পেরতে যে হবেই।

এই বিভাগের আরো খবর
Loading...