চাটমোহরে ৪৭টি মন্ডপে চলছে দূর্গাপূজার শেষ সময়ের প্রস্তুতি

হেলালুর রহমান জুয়েল,চাটমোহর প্রতিনিধি

0 26

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূর্গাপূজার শেষ সময়ে প্রস্তুতি চলছে। শেষ মূহুর্তের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত রয়েছে প্রতিমা কারিগর ও পূজার আয়োজকরা। করোনা পরিস্থিতিতে আগের মতো সেই আড়ম্বর না থাকলেও পাবনার চাটমোহর উপজেলার মন্ডপে মন্ডপে চলছে সাজ সজ্জার কাজ।

এবার এ উপজেলায় ৪৭টি মন্ডপে অনুষ্ঠিত হবে দূর্গাপূজা। পাবনা তথা উত্তরাঞ্চলের অন্যতম প্রতিমা তৈরির গ্রাম চাটমোহরের বেলগাছিতে তৈরি হচ্ছে ৯৫টি প্রতিমা। দৃষ্টিনন্দন ও আকর্ষনীয় করে তুলতে শিল্পীরা রাত-দিন ব্যস্ত সময় পার করছেন।

শিল্পীর হাতের ছোঁয়ায় একটু একটু করে যেন জীবন্ত হয়ে উঠছে দূর্গতিনাশিনী দেবী দূর্গা। বেলগাছির প্রতিমা তৈরির কারিগর অমল চন্দ্র পাল ও তাঁর স্ত্রী দীপা রানী পাল এবার ২৮টি প্রতিমা তৈরি করছেন। অপু পাল ও সুচিত্রা পাল দম্পতি তৈরি করছেন ১২টি প্রতিমা।

এছাড়া সোনাতন পাল ও লতাপাল দম্পতিও প্রতিমা তৈরিতে মহাব্যস্ত। রবিবার সকালে গিয়ে দেখা গেল তারা ব্যস্ত রয়েছে প্রতিমা সাজ সজ্জার কাজে। জানালেন,এখন শেষ মূহুর্তে কাজ করছেন। পাবনা,সিরাজগঞ্জ,বগুড়া ও নাটোরের বিভিন্ন এলাকার মন্ডপে তারা এই প্রতিমা সরবরাহ করবে। আগেই অর্ডার নেওয়া আছে।

একেকটি প্রতিমা তৈরি করতে ১৫ থেকে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত খরচ হয়। মূলতঃ ছোট ছোট মন্ডপের জন্যই এগুলো তৈরি করা হয়। বিলচলন ইউনিয়নের বোঁথর গ্রামের প্রতিমা কারিগর সৌমেন চক্রবর্তী ও তার ভাই দুলাল চক্রবর্তী এবার ১২টি প্রতিমা তৈরি করেছেন। যেগুলোতে শেষ সময়ের তুলির আঁচড় দেওয়া হচ্ছে।

উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক অশোক চক্রবর্তী জানালেন,সরকারি বিধি তথা স্বাস্থ্যবিধি মেনেই তারা এবার পূজার আয়োজন করছেন। সেভাবেই সবাইকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

চাটমোহর থানার ওসি মোঃ আমিনুল ইসলাম জানালেন,পুলিশের পাশাপাশি প্রতিটি মন্ডপে আনসার ও গ্রাম পুলিশ দায়িত্ব পালন করবে। থাকবে স্বেচ্ছাসেবক। সুষ্ঠুভাবে পূজা অনুষ্ঠানে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল প্রকার সহযোগিতা করা হচ্ছে।

এই বিভাগের আরো খবর

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.